Home / BCS Tips / শেষ সময়ে যেভাবে নেবেন প্রিলি প্রস্তুতিঃ সুশান্ত পাল

শেষ সময়ে যেভাবে নেবেন প্রিলি প্রস্তুতিঃ সুশান্ত পাল

সামনেই ৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারী পরীক্ষা।অনেকেই ভেবে থাকেন এই অল্প সময়ে কিভাবে প্রিলি পরীক্ষায় পাস করা যায়, এটা অসম্ভব, ভাবেন পরের বিসিএস এ ভালো করে প্রিপারেশন নিয়ে পরীক্ষা দেবেন, এবার বাদ। এমনটা অনেকেই করেন, কিন্তু এটি একটি ভুল চিন্তা।

Loading...

 

১০তম থেকে ৩৭ তম বিসিএসের প্রশ্ন ও সমাধান PDF File Download করতে এখানে ক্লীক করুন

 

একটি কথা না বললেই নয়, বিসিএস যদি সত্যি আপনার স্বপ্ন হয়ে থাকে তাহলে একটি বিসিএস দিয়েই ক্যাডার হওয়ার স্বপ্নটা এমন করে ফেলবেন না যে, যদি কোন কারণে প্রথমবার আপনি সফল হতে নাও পারেন তাহলে তা যেন আপনাকে হতাশায় না ডুবিয়ে দেয়। তাই মিনিমাম ২/৩ টা বিসিএস টার্গেট করুন এবং এর জন্য অনার্সের শেষ দিকের সময়টা থেকেই পড়াশুনা শুরু করার চেষ্টা করুন। দেখবেন সফল আপনিও হবেন। শুধু নিজের মাঝে স্বপ্নটা পূরণের জন্য থাকতে হবে আত্মপ্রত্যয়।

 

গত মার্চ মাস থেকে আজ পর্যন্ত The Daily Star পত্রিকার Vocabulary গুলো সব একসাথে  PDF File Download করতে এখানে ক্লীক করুন

 

প্রথমবারেই সফল হতে হবে -তা ঠিক নয়। অন্তত চেষ্টা করুণ একটা ভালো পরীক্ষা দেবার, এবার না হলে পরের বারের জন্য এগিয়ে থাকবেন। এই পড়াশুনা জীবনে এমন অনেক সরল অংক করেছেন যার সঠিক ফলাফল আনতে ২-৩ বার করতে হয়েছে। কিন্তু তাই বলে কি প্রথমবার ফলাফল আনতে পারেননি বলে তা থেকে কিছুই শেখেননি এমনতো নয়, শিখেছিলেন কোথায় ভূলটা হয়েছিল সেটা ধরতে পেরেছিলেন। আর সে জন্যই ২য় বারে সঠিক ফলাফল আনতে পেরেছিলেন।

 

 

যারা বিসিএস দিতে যাচ্ছেন তারা প্রথমেই একটি কথা খেয়াল রাখুন আপনি বিসিএস প্রিলি এর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে চাচ্ছেন রিটেনের জন্য নয়। ব্যাপারটি এমন একটি ব্রিজ পার না হয়ে অন্য ব্রিজ পার হওয়ার চিন্তা করা কিঞ্চিৎ অনর্থক। তবে প্রিলির জন্য কিছু কিছু বিষয় পড়লে তা পরবর্তীতে লিখিত পরীক্ষার জন্য কাজে লাগে।সময় যেহেতু কম তাই ভাবনায় রাখুন শুধুই প্রিলি।

 

Bank Exams এর জন্য গুরুত্বপুর্ন ১৫০০ টি প্রশ্ন একসাথে দেওয়া হল  

১ম কাজ: আপনি যেহেতু প্রথমবার বিসিএস প্রিলি দিতে যাচ্ছেন তাই, বিগত ১০-৩৭ তম বিসিএস প্রিলি পরীক্ষার প্রশ্ন গুলি আগে দুবার একবার পড়ুন। এবং পড়ার সময় একটি বিষয় মাথায় রাখুন কোন কোন বিষয় গুলি থেকে প্রায় প্রতিবারই কোন না কোন প্রশ্ন এসেছে। এবং একটি নোটবুকে সেই বিষয় গুলি লিখে রাখুন। যেমন: উপজাতি থেকে যদি দেখেন প্রায় প্রতিবারই একটা দুইটা প্রশ্ন এসে থাকলে তাহলে সেটি *** দিয়ে নোট ডাউন করুন, এভাবে ** দেন তার চেয়ে যে বিষয় গুলি একটু কম রিপিট হয়েছে। এই কাজটি সঠিকভাবে করতে করলে আপনার মাঝে একটি ভালো ধারণা জন্ম নিবে যে কোন কোন বিষয় গুলিতে আপনাকে বেশি নজর রাখতে হবে । এরপর যখন আপনি বিষয় ভিত্তিক পড়াশুনা করবেন তখন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পড়ার চেষ্টা করুন।

 

 

২য় কাজ: মাথা থেকে ঝেরে ফেলুন আপনি যে বিষয়টি অনেক দুর্বল সেটির কথা সাময়িক। তবে ম্যাথ এবং ইংরেজি যেকোন একটি বিষয় আপনাকে মোটামুটি দক্ষতা অর্জন করতে হবে। অন্য বিষয় গুলি অনেকটাই শুধু পড়া আর মনে রাখার সাথে সম্পৃক্ত। তবে সেটিকে কতটা সহজ করা যায় এবং মনে রাখা যায় তার কৌশল বের করতে হবে। মুখস্থ করার চেয়ে ইমাজিনেশন অনেক বেশি কাজে দেয়। সব বিষয়ে দক্ষ হতে হবে বা ২০০ মার্কসের প্রস্তুতি নিতে হবে তা নয়, আপনি যদি ভালোভাবে ১৬০/১৭০ এর প্রস্তুতি নিয়ে প্রিলি পরীক্ষায় ১৩০/১৪০ মার্কস তুলতে পারেন তাহলে নিশ্চয়ই আপনি লিখিত পরীক্ষার জন্য সিলেকশন পেয়ে যাবেন। তাই এই অল্প সময়ে নিজেকে প্রস্তুত করুণ নিজের উপর পূর্ণ আস্থা আর দক্ষতা দিয়ে । মনে রাখুন কেউ ১৭০ পেয়েও প্রিলি কোয়ালিফাইড হচ্ছে আবার কেউ ১২০ পেয়েও । আর প্রাথমিক বাছাই পরীক্ষায় কোয়ালিফাইড হওয়াই মূল কথা।

বিসিএসের টিপস সবার আগে পেতে আমাদের পেইজে লাইক দিয়ে একটিভ থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *